খ্যাতনামা ব্যক্তিদের ছবি দেয়ালে টানিয়ে রাখা

58

মানুষের মধ্যে খ্যাতিমান ব্যক্তি, দলীয় নেতা অথবা নিজের আত্মীয়-স্বজনদের মধ্য থেকে বিভিন্ন ব্যক্তিদের ছবি দেয়ালে টানিয়ে রাখা শিরকের সমতুল্য তথা হারাম। কারণ ছবি বৈধ থাকলে সর্ব প্রথমে মানুষ মহানবী সল্লাল্লহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের ছবি রাখার অনুমতি পেত। উল্লেখ করা যায় যে, বর্তমানের মানুষ যে ধরনের ছবি-মূর্তি বানাতে পারে, তদানীন্তন মানুষ তার থেকে অনেক বেশি নিখুঁত ছবি বানাতে পারত। ইহুদী এবং খৃষ্টান-গন তাদের নবীদের ছবি মূর্তি হিসাবে করে রেখেছিল। মহানবী সল্লাল্লহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাদেরকে অভিসম্পাত করেছেন এবং মুসলমানদেরকে বলেছেন যে, “তারাও যেন ইহুদী এবং খৃষ্টানদের মত রসুল সল্লাল্লহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কবরকে ইবাদতের গৃহে পরিণত না করে”। তাছাড়া ছবি এমন একটা জিনিস যে, কোন ঘরে টানানো থাকলে সে ঘরে আর নামাজ পড়া যাবে না তথা রহমতের ফেরেশতা প্রবেশ করবেনা। মানুষের মধ্যে যারা মুশরিক, কেবল তারাই তাদের দেবতাদের ছবি দেয়ালে টানিয় রাখে, কারণঃ তাদের দেবতাদের ছবি দেয়ালে টানিয়ে রাখা সে ধর্মানুসারে এক প্রকার ইবাদত তথা ছওয়াবের কাজ। তাই যারা দেয়ালে ছবি টানিয়ে রাখে তারা প্রকারান্তরে সে সকল মুশরিকদেরকেই অনুসরণ করল, যাদের সাথে ইসলামের কোন সম্পর্ক নেই।

মানুষ দুনিয়াতে আসে ক্ষণস্থায়ী হিসাবে। এর মধ্যে তার সময় শেষ হয়ে গেলে সে চলে যায় এবং তার যায়গায় আবার অন্য মানুষ এই সে সে যায়গা পূরণ করে; এটাই দুনিয়ার স্বাভাবিক বিধান। অথচ কেউ যদি সে সকল লোকদেরকে দুনিয়াতে ধরে রাখার জন্য চেষ্টা করে, তাহলে সে মহান আল্লহ রব্বুল আলামীন এর বিধান নিয়েই তামাশা করল। অতএব যেখানে প্রয়োজন ছাড়া ছবি তোলাই ঠিক নয়, আর সেখানে ছবি টানিয়ে রাখার কোন প্রশ্নই উঠে না। যাদের অপ্রয়োজনীয় ছবি তোলা তথা অযথা অবৈধ পথে টাকা খরচ করার অভ্যাস আছে, তারা জরুরী ভিত্তিতে তওবা করে রসুল সল্লাল্লহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের পথে পরিচালিত হোন। কারণ মানুষ মরে গেলে আল্লহর হেফাজতে চলে যায়। সেমতাবস্থায় তার ছবি আপনার হেফাজত করার কোন দরকার নেই। যদিও উত্তম বিষয়টি মহান আল্লহ রব্বুল আলামীনই ভাল জানেন, তারপরও এ বিষয়ে আরও অধিক জানার জন্য ইন্টারনেট মাধ্যমে নীচের ওয়েব সাইট ভিজিট করুন:

http://www.islam-qa.com/en/ref/39185/picture 

http://www.islam-qa.com/en/ref/20325/picture 

http://www.islamicity.com/qa/action.lasso.asp? -db=services&-lay=Ask&-op=eq&number=5517&-format=detailpop.shtml&-find

 

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *